চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০

চট্টগ্রামে ইন্সুরেন্সের নাম ভাঙ্গিয়ে অর্থ আত্মসাৎকারীর বিরুদ্ধে মানববন্ধন

প্রকাশ: ২০১৯-০৬-১৭ ১৯:০৯:৩৬ || আপডেট: ২০১৯-০৬-১৭ ১৯:০৯:৩৬

প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স লিঃ কোম্পানীর নাম ভাঙ্গিয়ে মোটা অংকের অর্থ আত্মসাৎকারী ইফতেখারুল করিম নামের কথিত এক সাংবাদিকের বিচার দাবিতে মানববন্ধন করেছে ক্ষতিগ্রস্থ শত শত গ্রাহকেরা। এছাড়াও আনোয়ারা উপজেলার সরকার বাড়ীর এই কথিত সাংবাদিক ইফতেখারের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন সহ নানা অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (১৭ জুন) বিকাল ৪টায় নগরীর অক্সিজেন চত্বরে এই মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রতিবাদকারীরা দাবি করেন, ইফতেখারুল করিম একজন সাংবাদিক পরিচয় দানকারী ভূয়া সাংবাদিক। বিভিন্ন মিডিয়ার পরিচয় দিয়ে নিজেকে সাংবাদিক দাবি করেন তিনি। কখনো পত্রিকা, কখনো স্যাটেলাইট টিভির সাংবাদিক আবার কখনো চট্টগ্রামের বহুল প্রচারিত একটি পত্রিকার মালিকের ভাগিনা পরিচয়ে তার অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন।

নানা বিশেষণ আর নানা পরিচয় দিয়ে আনোয়ারার এই যুবক সহজ সরল মানুষের সাথে প্রতিনিয়ত ইন্সুরেন্স এর নামে টাকা হাতিয়ে প্রতারনা করে যাচ্ছেন বলে মানববন্ধনে দাড়ানো লোকজন জানান।

ইফতেখারুল করিম তার সাবেক ৩য় স্ত্রী লিমা আক্তারের স্বামী পরিচয়কে কাজে লাগিয়ে নগরীর টেক্সটাইল এলাকায় প্রাইম ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স লিঃ কোম্পানীর কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে কোম্পানীর নাম ভাঙ্গিয়ে কয়েক লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন বলে মানববন্ধনে উপস্থিত ক্ষতিগ্রস্থরা জানান।

তাদের দাবি, প্রাইম ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স লিঃ কোম্পানীতে বীমা করিয়ে দিয়েছে বলে প্রতি মাসের উত্তোলন করা টাকা জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করেছে ইফতেখার। বিনিময়ে তাদের দিয়েছে ভূয়া কিছু রসিদপত্র।

মানববন্ধনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদের সাথে সাবেক তার দুই স্ত্রী লিমা, আসমা ও চার সন্তানও অংশ নেয়। এসময় স্ত্রীরা দাবি করেন ইফতেখারুল করিম একজন ভ- প্রতারক। সে কখনো সাংবাদিক, কখনো পত্রিকা মালিকের আত্মীয়, কখনো আবার মানবাধিকার কমিশনের ভাইস চেয়ারম্যান বলে দাবি করতেন। নগরীর বিভিন্ন থানা তার বিরুদ্ধে জিডি রয়েছে বলে জানান স্ত্রী লিমা।

দ্রুত সময়ে ইফতেখারুল করিমকে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন মানববন্ধনের বক্তা ও ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহকেরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাইম ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স লিঃ কোম্পানীর আগ্রাবাদ অফিসে যোগাযোগ করা হলে কথিত সাংবাদিক ইফতেখারুল করিমের নাম শোনে কোন কর্মকর্তা মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

ট্যাগ :