চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০

অবারো পরিবহন সেক্টরে অনিয়ম, পুনরায় নগরীরতে নেমেছে বিআরটিএ

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১৬ ১৪:৩৭:৫৭ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১৬ ১৪:৩৭:৫৭

এ.এস.রানা: চট্টগ্রামে পৃথক পৃথক বেশ কয়েকটি জায়গায় অভিযান চালিয়েছে বিআরটিএ। সোমবার ১৫ জুলাই নিরাপদ সড়ক ও যাত্রীদের যাত্রার স্বস্তির লক্ষ্য নগরের বিভিন্ন স্থানে চট্টগ্রাম বিআরটিএ তিনটি আদালত দিয়ে ভ্রাম্যমাণ অভিযান পরিচালনা করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় তিনটি জনবহুল ও গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় কোর্ট পরিচালনা করে।

এই সময় চেক করা হয় গাড়ির কাগজ,ফিটনেস, ড্রাইভিং লাইসেন্স, বেপরোয়া ড্রাইভিং। সেই সাথে তাদের নজর ছিল যাত্রী হয়রানির অভিযোগ, অতিরিক্ত ভাড়া, ভুল জায়গায় পার্কিং, যানজটের কারন।

অভিযান চালানো হয় নগরীর প্রধান ফটক সিটি গেইট। আদালত -১৩,আদালত পরিচালনায় ছিলেন নির্বাহী মাজিস্ট্রেট ,অভিযান চলাকালীন মামলা দেয়া হয় ১৫,জরিমানা ৪১৫০০টাকা। ডাম্পিং হয় ১।

আদালত -১৩ এর দেয়া তথ্য অনুযায়ী কারাদন্ড একজন আসামী হলেন, আবুল কালাম (৫৪),তিনি পেশায় সিনিয়র একজন ড্রাইভার। তিনি নিয়মিত ভাড়ী যানবাহন চালাচ্ছেন লাইসেন্সবিহীন। এই সময় আদালত -১৩ আপসোস করে বলেন এই ভুয়া লাইসেন্সধারী ড্রাইভার কে কিভাবে মালিক পক্ষ গাড়ি চালানোর চাবি বুঝিয়ে দিলেন।

এই অপরাধে আবুল কালাম কে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তার বাড়ি চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড থানার জাফরাবাদ গ্রামে।তিনি মরহুম সোনা মিয়ের ছেলে বলে জানা যায়। সে তার ড্রাইভিং জীবনে লাইসেন্স কখনো করেনি। ভুয়া লাইসেন্স দিয়ে এতদিন যাবৎ গাড়ি চালিয়ে আসছেন। যদিও মালিক ড্রাইভার কে গাড়ি দেয়ার আগে কিন্তু তার লাইসেন্স নকল ও ভুয়া সেটি মালিক পক্ষ পরীক্ষা করার নিয়ম থাকলেও সেটি তারা বারবার ভঙ্গ করেই ড্রাইভারদের হাতে গাড়ি দিয়ে যাচ্ছেন।

নগরীর অন্যান্য জায়গায়তেও একই সাথে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। সব মিলিয়ে সোমবারের সর্বমোট মামলা দেয়া হয় ২২ টি,ডাম্পিং ১,সব মিলিয়ে ৪৯৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়।কারাদণ্ড দেয়া হয় এক ভুয়া লাইসেন্সধারীকে।

ট্যাগ :