চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১

ফের কক্সবাজারে চোরাই কাঠ ভর্তি গাড়ি আটক

প্রকাশ: ২০১৯-১২-০৭ ১৫:৫০:০৪ || আপডেট: ২০১৯-১২-০৭ ১৫:৫০:০৪

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভিন্ন বনাঞ্চলে কাঠ চুরি ও পাচারের ঘটনা বৃদ্ধি পেলেও বনকর্মীদের দফায় দফায় অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার ৭ ডিসেম্বর ভোর ৫ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার- চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া ফাসিয়াখালী রাস্তার মাথা নামক স্থানে বিশেষ টহলদল অভিযান চালিয়ে অবৈধ জ্বালানী কাঠ ভর্তি একটি টিএস গাড়ি জব্দ করেছ। এর আগে আটক করা হয় বিপুল পরিমাণ চোরাই কাঠ ভর্তি একটি মিনি ট্রাক। বনবিভাগের অভিযান অব্যাহত থাকায় চোরাই কাঠ পাচার অনেকটা হ্রাস পাচ্ছে বলে দাবী বনবিভাগের।

জানা যায়, উত্তর বনবিভাগের বনাঞ্চল থেকে বৃক্ষ নিধন করে শনিবার ভোর ৫টার দিকে বিপুল পরিমাণ চোরাই কাঠ ট্রাক যোগে পাচার করছিল সংঘবদ্ধ চক্র। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল ইসলামের নির্দেশে ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলামের সহযোগিতায় কক্সবাজার সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা ও বিশেষ টহল দলের ওসি এমদাদুল হকের নেতৃত্বে স্পেশাল টিম অভিযান চালায়। এসময় পাচার কালে চকরিয়া ফাসিয়াখালী রাস্তার মাথা নামক স্থান থেকে অবৈধ জ্বালানী কাঠ ভর্তি একটি টিএস গাড়ি আটক করে। জ্বালানী কাঠের পরিমাণ আনুমানিক ৩০০ ঘনফুট। এ ব্যাপারে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

এর আগে ২ ডিসেম্বর বিকালে সংঘবদ্ধ কাঠ চোরাকারবারী দল কর্তৃক পাচার কালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া মৌলভীর কুম নামক স্থানে অভিযানে আটক করা হয় চোরাই কাঠ ভর্তি একটি মিনি ট্রাক (ডাম্পার)।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলাও হয়েছে বলে জানান অভিযানে নেতৃত্বদানকারী সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা ও বিশেষ টহল দলের ওসি এমদাদুল হক।

কক্সবাজার সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা ও বিশেষ টহল দলের ওসি এমদাদুল হক জানান, সংঘবদ্ধ একটি কাঠ চোরাকারবারী সিন্ডিকেট বন বিভাগের লোকজনের চোঁখকে ফাঁকি দিয়ে বননিধন ও চোরাই পথে কাঠ পাচার অব্যাহত রাখার চেষ্টা করছে। কিন্তু যাখনই খবর পাওয়া যাচ্ছে তখনই চালানো হচ্ছে অভিযান। এতে করে দিনদিন চোরাই পথে কাঠ পাচার হ্রাস পাচ্ছে। এ সংক্রান্তে বেশ কয়েকটি সিওআর মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান, বনজ দ্রব্য ধবংসকারী ও চোরাচালানী চক্রের বিরুদ্ধে বনবিভাগের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গাছ চোরাচালানে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। চোরাই পথে গাছ পাচারের চেস্টা করা হলে তাৎক্ষনিক অভিযান চালিয়ে তা জব্দ করা হচ্ছে। বন নিধনকারীদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগ :