চট্টগ্রাম, , রোববার, ১ আগস্ট ২০২১

কলাতলীতে ট্রাক চাপায় আইনজীবীসহ নিহত ৩, আহত ৭

প্রকাশ: ২০২১-০৩-০৭ ১৪:৪৩:৩২ || আপডেট: ২০২১-০৩-০৭ ১৪:৪৩:৩২

কক্সবাজার প্রতিনিধি: রক্তাক্ত হয়েছে পর্যটন নগরী কক্সবাজার কলাতলী ডলফিন চত্বর। সিমেন্ট বোঝাই একটি ট্রাক চাপায় বহু হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। একি সাথে সড়কের পার্শে পার্কিংয়ে থাকা ধুমড়ে মুচড়ে যায় ২টি ভাসমান দোকান, ২টি সিএনজি ও ১টি টমটম। এ ঘটনায় ৩ জন নিহত ও ৭ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

নিহত ৩ জনের মধ্যে একজন কলাতলীর দক্ষিণ আদর্শ গ্রামের মোহনা বেগম (৭০), কক্সবাজারের সিনিয়র আইনজীবি ওসমান গণি ও অপরজন ঢাকা উত্তরার শাহাদাত হোসেন।

শনিবার ৬ মার্চ রাত ১১টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানা যায়।

ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারমূখী একটি ট্রাক কলাতলী ডলফিন চত্বরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে তুলে দেয়। ট্রাক চাপায় ধুমড়ে মুচড়ে যায় ২টি ভাসমান দোকান, ২টি সিএনজি ও ১টি টমটম। এসময় তাৎক্ষণিক মূমুর্ষ অবস্থায় নারীসহ ২জন কে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে তাদের মৃত্যু হয়। পরে ট্রাকের নিচ থেকে আরও ৩ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়া হাসপাতালে আরও ৫ জন গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে। তারমধ্যে সবশেষ ভোর রাত ৪ টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কক্সবাজারের সিনিয়র আইনজীবি এডভোকেট ওসমাণ গণি মারা গেছেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ সোহেল ও নুরুল ইসলাম নামের দুই ব্যক্তি জানান, হঠাৎ করে ট্রাকটি তাদের পাশ ঘেষে ফুটপাতে তুলে দেয়। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই মুহুর্তের মধ্যে ভেঙে তচনচ হয়ে যায় ২টি সিএনজি, ২টি ভাসমান দোকান ও ১টি টমটম। এসময় ট্রাকের নিচ থেকে নারী-শিশুসহ ৫ জনকে উদ্ধার করা হয়।
এছাড়া বাকী আরো ৭ জনকে মূমূর্ষ অবস্থায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে দুর্ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা চালায় পুলিশ ও দমকল বাহিনী। উদ্ধার তৎপরতা কাজে সহায়তা করেন মেয়র মুজিবুর রহমান, সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীসহ স্থানীয়রা।

রিপোর্টার্স ইউনিটি কক্সবাজার‘র সভাপতি এইচ,এম নজরুল ইসলাম বলেন, সড়কে নানা অনিয়মে চলছে যানবাহন। আইন করেও নিশ্চিত করা যাচ্ছে না শৃঙ্খলা। অবৈধ যানবাহন চলছেই। ঝুঁকি নিয়ে মানুষের রাস্তা পারাপার থামছে না। যানবাহনও চলছে বেপরোয়াভাবে। সড়কে অবৈধ দোকান, নছিমন, অটোরিকশা চলছে আগের মতোই। যার কারণে দুর্ঘটনায় মানুষের প্রাণহানি আবারও বাড়ছে।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখা হবে। যারা এর জন্য দায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পরিদর্শন করে এবং চিকিৎসারত আহতদের আর্থিক সহযোগিতার ঘোষণা দেন।

ট্যাগ :