চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১

আল আমিন বাড়ীয়া পোষ্ট অফিসে বাড়তি ফি আদায়ের অভিযোগ

প্রকাশ: ২০১৭-১২-২১ ১১:৩৬:৪৬ || আপডেট: ২০১৭-১২-২১ ১১:৩৭:৩৪

নিজেস্ব প্রতিবেদক: সাধারন মানুষ সঞ্চয়ের জন্য পোষ্ট অফিসের স্থানীয় শাখায় হিসাব খোলে। কারণ ব্যাংকে নানা ঝামেলা, কাজের ব্যস্ততার জন্য সাধারন মানুষ সঞ্চয় বা ডিপিএস’র হিসাব খোলার জন্য পোষ্ট অফিসকে বেছে নেয় এবং ব্যাংকে নানা সার্ভিস চার্জ কেটে নেয় বলে পোস্ট অফিসে হিসাব খোলে। সরকার জনসাধারনকে সঞ্চয়ে উদ্ধুদ্ধ করতে নানা রকম উৎসাহব্যঞ্জক কর্মসূচী হাতে নেয়। জনসাধারনকে সম্পূর্ন ফ্রি সেবার মাধ্যমে এ সঞ্চয় প্রকল্প চালু করেছে সরকার। এই কারণে ক্ষুদ্র বিনিয়োগে আগ্রহীরা ডাকঘরকে বিশ্বস্থ প্রতিষ্ঠান হিসাবে বেছে নেন। কিন্তু আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরে গেলে দেখা যায় তার উল্টো রুপ। স্মাট জিন্সের এক নারী পোষাক শ্রমিক রুনা আক্তার এই প্রতিবেদকে জানান যে, তিনি ৫০০/- টাকা নিয়ে সাধারণ হিসাব খোলার জন্য আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরে গেলে ঐ ডাকঘরের সাব পোষ্ট মাষ্টার বাড়তি আরো ২০০/- টাকা দাবী করেন। ২০০/- টাকা দিতে না পারায় পোষ্ট মাষ্টার হিসাব না খোলে তাকে বিদায় করে দেন, বলে জানান।

বিগত ০৫/১১/২০১৫ইং তারিখে স্মারক নং: বি-১-স্টফ/ব্যবস্থাপনা/চট্টগ্রাম বিভাগ, মুলে সুরেশ চক্রবতীকে জাকির হোসেন রোড ডাকঘরে বদলি করা হয়। অথচ তিনি বিগত ১৯/০৬/২০১৭ইং তারিথে নথি নং:বি-১-স্টফ/টেনিউর/চট্টগ্রাম বিভাগ, মুলে তাহাকে আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরে বদলি করা হয়। যেখানে মহা পরিচালক (ডাক) এর পরিপত্র অনুযায়ী তিন বছরের আগে একটি ডাঘকরে থেকে বদলী হওয়ার পর আবার ঐ ডাকঘরে বদলী হওয়া যায় না। সাব পোষ্ট মাষ্টার (এস পি এম) সুরেশ চক্রবর্তী আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘর হতে বদলী হয়ে আবার অল্প দিনের ব্যবধানে আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরে বদলী হয়ে আসেন। 

আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পোষ্ট ম্যান এ প্রতিবেদক কে জানান যে, স্যারের সাথে একজন ডাইরেক্টরের সাথে সু-সম্পর্ক আছে। তারই নির্দেশে স্যার আবার আল আমিন ডাকঘরে বদলী হয়ে এসেছেন।
সাব পোষ্ট মাষ্টার সুরেশ চক্রবর্তী মুঠোফোনে এ প্রতিবেদকে বলেন, ফি নেয়ার কথা তার জানা নেয়। যার কাছ থেকে শুনেছেন তাকে সহ তার কাছে যেতে বলেন। হিসাব খোলার ফরম পূরণ করতে চা-নাস্তার টাকা নেওয়া হয়। তিন বছর পূর্ণ হওয়ার আগে একই জায়গায় বদলী প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা সরকারের ব্যাপার।
এই ব্যাপারে ডেপুটি পোষ্ট মাষ্টার জেনারেল চট্টগ্রাম তৈয়ব আলী ফোনে জানান, সরকারি বিধান অনুযায়ী কোন অতিরিক্ত ফি আদায় করা বেআইনি। আল আমিন বাড়ীয়া ডাকঘরে বাড়তি ফি নেওয়ার বিষয়টি অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দেখবো। তিনি আরো জানান, পরিপত্র অনুযায়ী যে কোন সময় বদলী হতে পারে, তবে এক স্থানে তিন বছর থাকতে হবে।

ট্যাগ :