চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

সন্দীপনার নবীব বরণ উৎসব সম্পন্ন

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২৭ ১৬:৪৬:৪০ || আপডেট: ২০১৯-০৭-২৭ ১৬:৪৬:৪০

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় সংস্কৃতিক সংগঠন সন্দীপনা কেন্দ্রীয় সংসদের সঙ্গীত, নাটক, আবৃত্তি, চারুকলা ও লোককলা বিভাগে নবাগত সভ্যদের নবীন বরণ অনুষ্ঠান ২৬ জুলাই সকাল ১০টায় সংগঠনের দোস্ত বিল্ডিস্থ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গল দীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে কর্মসূচীর উদ্বোধন ঘোষণা করেন-সন্দীপনার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ভাষ্কর ডি.কে.দাশ (মামুন)।

সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত নবীন বরণ প্রধান অতিথি ও প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সহকারী জজ মনজুর মাহমুদ খান এবং অধ্যাপক স্বদেশ চক্রবর্তী। প্রধান অতিথি নবীন সংস্কৃতি কর্মীদের পুষ্পস্তবক দিয়ে বরণ করেন।

সন্দীপনার সিনিয়র সহসভাপতি প্রধান শিক্ষক বাবুল কান্তি দাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দুই পর্বের অনুষ্ঠানে ১ম পর্ব নবীন বরণ অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথিবৃন্দের মাঝে উপস্থিত ছিলেন-নাট্যনজ শেখ শওকত ইকবাল, শিল্পী ও সংগঠক এম.এ হাশেম, চট্টগ্রাম মুক্তিযোদ্ধা খুলশী কমান্ডার মোহাম্মদ ইউছুপ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শাহ আলম, সাংস্কৃতিক বিশ্লেষক সজল চৌধুরী, অধ্যক্ষ শেখ এ রাজ্জাক রাজু, নাট্যকর্মী কে.কে বাবুল, শিল্পী হানিফুল ইসলাম হানিফ, রাজনীতিবিদ হাবিবুর রহমান হাবিব, সংগঠক মোশারফ হোসেন খান রুনু, প্রধান শিক্ষক তরনী কুমার সেন, শিক্ষিকা তাহেরা খাতুন, শিল্পী সাবিকুন নাহার শিউলী, সংগঠক নিবেদিতা আচার্য্য, নাট্যকর্মী মোহাম্মদ রাশেদ, আজগর আলী প্রমুখ। নবাগতদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন-সাগর দেবনাথ, মিজনুর রহমান, শান্তা সেন, সুস্মিতা সেন, অর্পন সরকার, রবিন সরকার, নাজমা আক্তার রাবি, ক্ষুদে বঙ্গবন্ধু শিহাব উদ্দিন, প্রিয়া চৌধুরী।

বাচিক শিল্পী মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরীর পরিচালনায় বক্তরা বলেন, আকাশ সংস্কৃতি আর সাম্প্রদায়িক বার্তা বরনে বাঙ্গালী সংস্কৃতির যে টুটি চেপে ধরার অপঘাত বাঙ্গালীর মৌলিক সাংস্কৃতির ভিত্তির উপর ক্রিয়াশীল হবার উপক্রম হয়েছে তা কখনো স্বাধীন বাংলাদেশে সম্ভবপর নয়। যে জাতি বুকের রক্তে মাতৃভাষা ও মাতভূমির স্বাধীনতা কিনেছে তারা কখনোই হাজার বছরের বাঙ্গালী সংস্কৃতির আব্রু ধবংশ হতে দেবে না। নতুন প্রজন্মকে বাঙ্গালী সংস্কৃতির লালন ও চর্চায় দৃঢ় প্রত্যয়ী হতে হবে। ভিনদেশী সংস্কৃতির চর্চা কখনোই মঙ্গল ও সত্যিকারের অর্জন এনে দিতে পারে না। বক্তরা আরে বলেন- নব প্রজন্মকে সংস্কৃতি চর্চায় উদ্বুদ্ধ করলে জঙ্গীবাদ ও অসাম্প্রদায়িকতা নির্মূল হবে।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশ নেন শিল্পী এম.এ. হাশেম, শিল্পী তপন কুমার দাশ, শিল্পী বৃষ্টি দাশ, শিল্পী হানিফুল ইসলাম হানিফ, শিল্পী জাহানারা পারুল, শিল্পী রন্টি দাশ, শিল্পী প্রনব দাশগুপ্ত, শিল্পী উজ্জ্বল সিংহ, শিল্পী জ্যোতি শর্মা, শিল্পী মৈত্রী আচার্য্য প্রমুখ।

ট্যাগ :