চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

বিলাইছড়িতে গ্রীনহিলের সূর্যের হাসি ক্লিনিক শুভ উদ্বোধন

প্রকাশ: ২০১৯-১১-১২ ১৮:০৭:৫০ || আপডেট: ২০১৯-১১-১২ ১৮:০৭:৫০

বিলাইছড়ি প্রতিনিধি: মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিলাইছড়ি উপজেলায় গ্রীনহিল পরিচালিত সূর্যের হাসি ক্লিনিক শাখার শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।

সকালে এ উপলক্ষে উপজেলা থেকে নেয়া নিজস্ব ক্লিনিকে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরোত্তম তঞ্চঙ্গ্যা। উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ চৌধুরী।

গ্রীনহিল এর চেয়ারপাার্সন মিজ টুকু তালুকদার এর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিেেসবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় রবিন তঞ্চঙ্গ্যা ও উৎপলা চাকমা, বিলাইছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ পারভেজ আলী, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (নন ক্লিনিক) শশী লাল চাকমা ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ রনি সরকার। সূর্যের হাসি ক্লিনিক এর ম্যানেজার বাপ্পী তঞ্চঙ্গ্যার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, গ্রীনহিল (এইউএইচসি) এর প্রকল্প পরিচালক সাইলুমং মারমা।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন, গ্রীনহিল এর উপ-নির্বাহী পরিচালক যতন কুমার দেওয়ান। এর আগে ফিটা কেটে ক্লিনিক উদ্বোধন করা হয়।

এসময় বক্তারা বলেন, সরকারের এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামে তথা সারা বাংলাদেশে সরকারের পাশাপাশি এনজিওগুলো সুন্দরভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলায় শিশু ও মার্তৃমৃত্যু হার কমানোর জন্য এই ক্লিনিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে সকলে আশা প্রকাশ করেন। তবে তারা বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের লোকজন যাতে ন্যায্য সেবা পায় তার দিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আহবান জানান।

গ্রীনহিল প্রকল্প পরিচালক সাইলুমং মারমা স্বাগত বক্তব্যে বলেন, গ্রীনহিল পরিচালিত সূর্যের হাসি ক্লিনিক বিলাইছড়ির ফারুয়াতে মূলত ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে যাত্রা শুরু করে। কিন্তু সঙ্গত কারণে আজ উদ্বোধনের মাধ্যমে ফারুয়া থেকে উপজেলা সদরে ক্লিনিক স্থানান্তর করা হচ্ছে। তবে আমাদের কায্যক্রম সেখানে অব্যাহত থাকবে। ইউএসএআইডি আমেরিকা জনগণের পক্ষ থেকে ফান্ডের মাধ্যমে এই প্রকল্পটি পরিচালিত হচেছ। তিন পার্বত্য জেলায় ১৮ টি ক্লিনিকসহ সারা বাংলাদেশের মোট ৩৯৯ টি ক্লিনিক কাজ করে যাচ্ছে। এবং এই ক্লিনিক পরিচালনার লক্ষ্য হচ্ছে এসডিজির মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যু হার কমিয়ে আনা। বিশেষ করে পিছিয়ে পরা এবং সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠীর এলাকায় যেখানে সরকারের কার্য্যক্রম দোড়গোড়ায় পৌঁছাতে পারেনি সেখানে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই কার্য্যক্রম। তিনি আরও বলেন, প্রকল্পটি দীর্ঘ মেয়াদী চালানোর জন্য এখানে ন্যূনতম একটা চিকিৎসা ফি নেয়া হবে। তবে গরীব চিকিৎসা প্রার্থীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে।

ট্যাগ :