চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

বিসিবির পরিচালক রাসেলের জামিন মঞ্জুর

প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৯ ১৪:৫৭:০৮ || আপডেট: ২০১৯-১১-১৯ ১৪:৫৭:০৮

ডেস্ক রিপোর্ট: পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ হাশেমের ছেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক ও গুলশান ক্লাবের প্রেসিডেন্ট শওকত আজিজ রাসেল মাদক এবং গুলি উদ্ধার মামলায় নারায়ণগঞ্জের একটি আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত তিনি এ জামিন পেলেন।

মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর সকালে নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফয়সাল আতিক বিন কাদেরের আদালতে জামিন আবেদন করলে আদালত ৫ হাজার টাকা বন্ডে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ৪ নভেম্বর হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গাড়ি থেকে মাদক ও গুলি উদ্ধারের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দায়ের হওয়া মামলায় অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পান শওকত আজিজ রাসেল।

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ জানান, এ মামলায় শওকত আজিজ রাসেল হাইকোর্টের জামিনে ছিলেন। আজ হাইকোর্টের নির্দেশমতে নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করা হয়। আদালত ৫ হাজার টাকা বন্ডে পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করেন।

প্রসঙ্গত গত ১ নভেম্বর শওকত আজিজ রাসেলের ব্যবহৃত বিলাসবহুল গাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ মাদক ও গুলি উদ্ধারের দাবি করে পুলিশ। ওই দিন গভীর রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) গাড়িটি আটক করে তল্লাশি করা হয়।

এ সময় মাদক ও গুলি উদ্ধার করা হয় বলে জানানো হয়। গাড়িতে ছিলেন শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ফারাহ রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজ।

পুলিশ ওই গাড়ি (ঢাকা মেট্টো-ঘ-১৩-৮৩৭৫) থেকে ২৮ রাউন্ড গুলি, ১ হাজার ২০০ পিস ইয়াবা, ২৪ বোতল বিভিন্ন বিদেশি ব্র্যান্ডের মদ, ৪৮ ক্যান বিয়ার এবং ২২ হাজার ৩০০ টাকা উদ্ধারের কথা জানায়।

শনিবার ২ নভেম্বর দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) হারুন অর রশিদ সাংবাদিকদের কাছে এসব তথ্য উপস্থাপন করেন। এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে শওকত আজিজ রাসেল ও তার গাড়িচালক সুমনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দুটি মামলা করে জেলা ডিবি পুলিশ।

এর আগে ২ নভেম্বর সকালে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ছুটে যান পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ হাশেম ও তার স্ত্রী সুলতানা হাশেম। ডিবি কার্যালয়ে গিয়ে শওকত আজিজ রাসেলের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশকে সহায়তার আশ্বাস ও মুচলেকা দিয়ে পুত্রবধূ ফারাহ রাসেল ও নাতি আনাব আজিজকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান এমএ হাশেম।

তবে এর পর দিন ৩ নভেম্বর শিল্পপতি শওকত আজিজ রাসেলের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান আম্বর গ্রুপের মালিকানাধীন অনলাইন পোর্টাল নিউজ বাংলাদেশে ওই ঘটনার একটি ভিডিও আপলোড হয়। যেখানে দেখানো হয়, ১ নভেম্বর রাতে রাজধানীর বাসা থেকে শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ও ছেলেকে নারায়ণগঞ্জ ডিবি পুলিশের একটি টিম তুলে নিয়ে আসে। এই ভিডিও প্রকাশের পরই তা বিভিন্ন গণমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়।

৩ নভেম্বর বিকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে নারায়ণগঞ্জের এসপি হারুন অর রশিদকে বদলি করে তাকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকার পুলিশ অধিদফতরের টিআর পদে সংযুক্ত করার আদেশের খবর ছড়িয়ে পড়ে।

ট্যাগ :