চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

বিলাইছড়িতে কুপিয়ে দুই ভাইকে হত্যা ও দুইজন আহত

প্রকাশ: ২০১৯-১১-৩০ ১৬:৪৯:৩০ || আপডেট: ২০১৯-১১-৩০ ১৬:৪৯:৩০

বিলাইছড়ি প্রতিনিধি: রাঙামাটি জেলার বিলাইছড়ি উপজেলার কুতুবদিয়া গ্রামে শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) আনুমানিক বিকাল ৫ টার দিকে এক তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশীর দাড়ালো দা এর কোপে দুই ভাইকে হত্যা করা হয়েছে এবং এই ঘটনায় আরও দুইজন আহত হয়েছে।

হত্যাকারী লক্ষীজয় মার্মা (২৬) পিতা- কালামং মার্মা ও মাতা- নমিতা তঞ্চঙ্গ্যার ছেলে।

নিহতরা হলেন উপজেলার ১নং বিলাইছড়ি ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ সদস্য দীপংকর তঞ্চঙ্গ্যা (৩০) ও রাঙ্গুনীয়া কলেজের এইচএসসি ছাত্র শ্রীকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা (২০)। এছাড়া ঘটনায় সোনাবালা তঞ্চঙ্গ্যা (৩৭) ও প্রশান্ত তঞ্চঙ্গ্যা (১২) এ দু’জন মা-ছেলে গুরুতর আহত হয়েছে। দীপংকর তঞ্চঙ্গ্যা, শ্রীকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা ও সোনাবালা তঞ্চঙ্গ্যা তারা সম্পর্কে আপন তিন সহোদর ভাই-বোন।

ভিকটিমের ভাই সুকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা (৩৫) ও মা লক্ষী চোগী তঞ্চঙ্গ্যা (৫০) জানান, ঘটনার আগে থেকে ঘাতকের পরিবারের গরুগুলো তাদের (ভিকটিমদের) আম ও কাঁঠাল বাগানে ছেড়ে দিত। এতে তাদের বাগান ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই বাগানে গরু ছেড়ে না দেওয়ার জন্য ঘাতকের পরিবারকে বার বার অনুরোধ করা হয়। কিন্তু তারা তার পরেও বাগানে গরু ছেড়ে দিত।

এভাবে ঘটনার দিনেও ঘাতক যথারীতি তাদের বাগানে গরু ছেড়ে দিয়েছিল। তাই ভিকটিম (গ্রাম পুলিশ) দীপংকর তঞ্চঙ্গ্যা গরুগুলো বাগান থেকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলতে গেলে ঘাতক পিছনের আড়ালে গোপনে নিয়ে আসা ধারালো দা’ দিয়ে দীপংকরকে এলোপাতারি কোপ মারে। তাকে রক্ষার জন্য তার ভাই শ্রীকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা ঘটনাস্থলে গেলে তাকেও কোপ মারে এভাবে পর্যায়ক্রমে সোনাবালা তঞ্চঙ্গ্যা ও তার ছেলে প্রশান্ত তঞ্চঙ্গ্যাকেও কোপ মেরে ঘাতক পালিয়ে যায়।

ঘটনার পর পাড়া প্রতিবেশিসহ ভিকটিমের মা-বাবা ৪ (চার) জনকে বিলাইছড়ি উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে আসলে দীপংকর তঞ্চঙ্গ্যার ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় এবং শ্রীকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা হাসপাতালে আসার পথে মৃত্যুবরণ করে। এছাড়া সোনাবালা তঞ্চঙ্গ্যা ও তার ছেলে প্রশান্ত তঞ্চঙ্গ্যা গুরুতরভাবে আহত হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. তেজেন্দু বিকাশ চাকমা ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নীতিশ চাকমা তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র রেফার করা হয়েছে বলে জানান।

বিলাইছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ পারভেজ আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনিবার সকালে নিহতদের ময়না তদন্তের জন্য রাঙামাটি পাঠানো হয়েছে। এবং আসামীকে ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি আরও জানান, মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

ট্যাগ :